স্বপ্নের সেতু, সত্যের সেতু

0
235

দেবাশীষ পাল দেবু
প্রমত্ত পদ্মাকে জয় করে নির্মিত হয়েছে বাংলাদেশের অহংকারের সেতু। স্বপ্নের পদ্মা সেতু। দেশি-বিদেশি সকল ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে বাংলাদেশকে এনে দিয়েছে অবিস্মরণীয় বিজয়। যার পুরো কৃতিত্ব জননেত্রী শেখ হাসিনার। তার সাহসী নেতৃত্ব, ইস্পাতসম মনোবলের কারণে ১৭ কোটি মানুষের স্বপ্ন পুরণ হয়েছে।

জনকল্যাণমুখী সৎ ও দেশপ্রেমিক নেতা রাষ্ট্র পরিচালনা করলে কোনো ষড়যন্ত্রই যে জাতিকে পেছাতে পারে না, তার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা। বিরোধী পক্ষের কোনো ষড়যন্ত্র শেখ হাসিনাকে দমাতে পারেনি। তিনি সব প্রতিবন্ধকতা ডিঙিয়ে সফলভাবে পদ্মা সেতু নির্মাণ করেছেন।

পদ্মা সেতু এখন শুধুমাত্র একটি অবকাঠামো নয়, এটি এগিয়ে যাওয়া বাংলাদেশের প্রতিচ্ছবি। দেশের অন্যতম অহংকার ও গৌরবের প্রতিক। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অর্জিত বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সক্ষমতার স্মারক। বদলে যাওয়া বাংলাদেশের অনন্য মাইলফলক। দেশের অভুতপূর্ব উন্নয়নে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে বাংলার মানুষ শেখ হাসিনার মহিমান্বিত নেতৃত্বকে মূল্যায়ন করবে।

সেতু নির্মাণ প্রক্রিয়ায় ছিল অনেক বাধা। পদ্মা সেতু নিয়ে দেশবিরোধী অপশক্তির অপপ্রচারের রাজনীতিসহ দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্র- বিশ্ব ব্যাংক, হিলারি ক্লিনটন, ড. ইউনুস, খালেদা জিয়াসহ বিএনপি-জামায়াতের সকল ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে আজ শেখ হাসিনা প্রমাণ করেছে, বাংলাদেশ পারে। বিরোধী পক্ষেরও শুভবুদ্ধির উদোয় হোক।

এসবের পাশাপাশি ছিল প্রাকৃতিক চ্যালেঞ্জও। বিশ্বের অন্যতম খরস্রোতা নদী পদ্মা। এই নদীর তলদেশে মাটির স্তরের গঠন নিয়েও ছিল জটিলতা।
তবে এত জটিলতার বিপরীতে ছিলেন একজন স্টেটসম্যান শেখ হাসিনা। নিজ সিদ্ধান্তে অটল থাকা, আর নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাসই ছিল পদ্মা সেতু গড়ার মূল ভিত্তি। শেখ হাসিনার ইষ্পাত সমান দৃঢ়তায় গোটা দেশের মানুষের স্বপ্ন পূরণ হয়েছে।

নিজস্ব অর্থে পদ্মা সেতু নির্মাণের ফলে সারা বিশ্বে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সম্ভাবনা ও ভাবমূর্তি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর একটি সাহসী সিদ্ধান্ত তাকে একজন আত্মবিশ্বাসী, দৃঢ়প্রতিজ্ঞ রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দিয়েছে। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি, ধারাবাহিক জিডিপি প্রবৃদ্ধি এবং বিভিন্ন সামাজিক সূচকে বাংলাদেশের অবস্থানের উন্নতি আজ আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত।

আজ বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাসে মেতেছে দেশের সব শ্রেণি-পেশার মানুষ। পদ্মা সেতুর শুভ উদ্বোধন তাদের লালিত স্বপ্ন পূরণ করেছ। ব্যবসা-বাণিজ্যে অপার সম্ভাবনার দ্বার খুলে দিয়েছে। এই বাণিজ্য শুধু দেশে নয়, অন্যান্য দেশের সঙ্গেও যুক্ত হওয়ার পথ খুলেছে। বাড়বে রপ্তানি। সৃষ্টি হবে কর্মসংস্থান। বেকারত্ব ঘুচবে কয়েকগুণ। শিল্প কারখানার পাশাপাশি ব্যাপকভাবে বিস্তার লাভ করবে কৃষি নির্ভর অর্থনীতিও।

সবমিলিয়ে মহান স্বাধীনতার পর একটি শ্রেষ্ঠ অর্জন পদ্মা সেতু। আর এ অর্জনের মহানায়ক, জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা।

লেখক: রাজনীতিবিদ, সমাজসেবক ও সাবেক কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা, চট্রগ্রাম।

আজসারাবেলা/সংবাদ/রই/কলাম

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here