রেহানা প্রসঙ্গে বাঁধনকে যা বললেন অনুরাগ কাশ্যপ

0
39

সারাবেলা রিপোর্ট: অনুরাগ কাশ্যপকে বলা হয় বলিউডের ভার্সেটাইল মেধাবীদের অন্যতম। বলিউড বক্স অফিস থেকে বিশ্ব চলচ্চিত্রে যার দৃপ্ত পদযাত্রা সমানতালে। চলমান কান ফেস্টিভালে গিয়ে সেই অনুরাগের দেখা পেলেন ঢাকার আজমেরী হক বাঁধন। বিপরীতে রেহানা মরিয়ম নূর নামের এক বাংলাদেশী নারীকে খুঁজে পেলেন ‘গ্যাংস অব ওয়াসিপুর’-খ্যাত অনুরাগ।

মঙ্গলবার (১৩ জুলাই) সন্ধ্যার পর অনুরাগ কাশ্যপের সঙ্গে দেখা ও আড্ডা হয় আজমেরী হক বাঁধনের। সঙ্গে ছিলেন ‘রেহানা মরিয়ম নূর’ প্রযোজক জেরেমি চুয়া ও নির্বাহী প্রযোজক এহসানুল হক বাবু। তারও আগে অনুরাগ কাশ্যপ ছবিটি দেখেন। বাঁধনের সঙ্গে দেখা হওয়ার পর বার বার বললেন, ছবিটির প্রতি তার মুগ্ধতার কথা।

কান থেকে বাঁধন বলেন, ‘‘অনুরাগের সঙ্গে আমাদের প্রযোজকের ছোট্ট একটি বৈঠক ছিলো। ইনফ্যাক্ট সিঙ্গাপুরে ‘লাইভ ফ্রম ঢাকা’ প্রদর্শনীর পর থেকে জেরেমির সঙ্গে অনুরাগের ভালো বন্ধুত্ব হয়। যাইহোক, অল্প সময়ের জন্য হলেও সন্ধ্যাটা আমরা অসাধারণ আড্ডার মধ্যে কাটালাম। আমাদের সঙ্গে ছিলেন ভ্যারাইটি পত্রিকার সম্পাদকসহ আরও অনেকে। যারা সবাই আমাকে আসলে রেহানা বলেই সম্বোধন করছিলেন। বার বার সাদ ও ছবিটির প্রশংসা করছিলেন। এ মুগ্ধতার অনুভূতি আসলে বলে বোঝানো সম্ভব নয়।’’

কিন্তু অনুরাগ কী বললেন! বাঁধন ভক্তরা তো সেটি একটু আলাদা করে জানতে চায়। জবাবে রেহানা বললেন, ‘তিনি আন্তরিকভাবে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। বলতে চাইছিলেন আমার এক্সট্রা অর্ডিনারি অভিনয়ের মাধ্যমে নাকি বাংলাদেশ অফিসিয়ালি কান উৎসবে এন্ট্রি নিলো! এই আড্ডায় সাদ ছিলো না। একটু অসুস্থ ফিল করছে সে, তাই আসেনি। তার অনুপস্থিতিতেও অনুরাগ সাদের যে পরিমাণ প্রশংসা করেছে, সেটা ভাবা যায় না। এবং এই প্রশংসা সাদ ডিজার্ভ করে। অনুরাগ শেষে একটা কথাই বলেছেন, এই ছবি তার কাছে কোয়াইট এক্সট্রা অর্ডিনারি ফিল্ম বলে মনে হয়েছে। ছবির শেষ দৃশ্যটি নিয়ে অসম্ভব মুগ্ধতা প্রকাশ করেছেন। এই তো।’

এই আড্ডাই নয়, কানে যাওয়ার পর থেকে প্রতিনিয়ত উড়ছেন আজমেরী হক বাঁধন। প্রতিনিয়ত নিজের সব আপডেট জানাচ্ছেন সোশ্যাল হ্যান্ডেলে। নিয়মিত ফেসবুক লাইভে এসে জানাচ্ছেন সারাদিনের গল্প ও আগামী দিনের পরিকল্পনা। বাদ যাচ্ছে না তার মর্নিং ওয়াকের দৃশ্যও।

বাঁধন বলেন, ‘আসলে প্রথম শো দেখার আগ পর্যন্ত আমি আমার জীবনের সর্বোচ্চ প্রেশার নিয়েছি। শো শেষ হওয়ার পর সেই যে করতালি শুরু হলো সেটা তো আর থামছে না। কানে বাজছে এখনও। সেই থেকে আমি আসলেই পাখি হয়ে গেলাম। নিজেকে মুক্ত মনে হচ্ছে। এখন যেখানেই যাই, রেহানা বলে মানুষ হাই দিচ্ছে, এগিয়ে আসছে। তারা কে কোন শহরের মানুষ, পরিচয় কি- আমি কিছুই জানি না। এটা যে কী পরিমাণের ভালোলাগার বিষয়, বলে বুঝাতে পারবো না।’

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় কানতীরে বসে অনুরাগের সঙ্গে আড্ডা দিয়ে বাঁধন আরও রিচার্জ হয়েছেন বলে জানান। বললেন, ‘এই মানুষগুলোর সবচেয়ে বড় গুণ এরা মানুষকে এপ্রিশিয়েট করতে জানে। তারা ভাবে না এটা কোন দেশের ছবি, কেমন নির্মাতা বা আর্টিস্ট। তারা কাজ দেখে সেটার মূল্যায়ন করে। আমি অন্তত অনুরাগের কথায়-মেশায় কোনও অভিনয় দেখিনি। একেবারে ন্যাচারাল। এবং সে ছবির দৃশ্য ধরে ধরে প্রশংসা করছে। সারাক্ষণ সাদ, রেহানা, ইমুর (আমার বাচ্চার চরিত্র) প্রশংসা করছিলেন। অসাধারণ ফিল্ম ক্রিটিক বলে মনে হলো।’

এদিকে যত দিন গড়াচ্ছে কান-আকাশে ওড়া রেহানার হার্টবিট ততোই বাড়াচ্ছে। আর মাত্র দু’দিন। ১৭ জুলাই কানের পর্দা নামার আগে ১৬ জুলাই ঘোষণা হচ্ছে ‘রেহানা মরিয়ম নূর’র পুরস্কার জয় কিংবা পরাজয়ের খবর। আঁ সার্তে রিগায়-বিভাগে লড়াই করা রেহানা পেতে পারে বেস্ট পারফরমার অ্যাওয়ার্ডটি। এই বিভাগে লড়াই করা ছবিটির জন্য এই একটি পুরস্কারই বরাদ্দ রাখছে কান কর্তৃপক্ষ। ফলে, টিম বাঁধনের কপালে দুশ্চিন্তার বলিরেখাটা ক্রমশ স্পষ্ট হচ্ছে। কারণ, এ পর্যন্ত ছবিটি যারা দেখেছেন, তাদের বেশিরভাগই মনে করছেন- পুরস্কারটি পাচ্ছেন আজমেরী ওরফে রেহানা। প্রত্যাশার এই চাপ সামলাচ্ছেন কেমন করে?

বাঁধন বললেন, ‘আমার আর প্রত্যাশা নেই। আজ পর্যন্ত যেটুকু পেয়েছি, সেটাই অনেক। আর পুরস্কার পেলেও সেটার দাবিদার আমি নই। তার পুরোটা নির্মাতা সাদের। আমি শুধু তার আদেশ মান্য করার চেষ্টা করেছি অক্ষরে অক্ষরে।’

কান উৎসবের অফিসিয়াল সিলেকশনে বাংলাদেশের প্রথম ছবি হিসেবে আমন্ত্রণ পেয়েছে ‘রেহানা মরিয়ম নূর’। ছবিটির চিত্রনাট্য ও সম্পাদনা করেছেন নির্মাতা আবদুল্লাহ মোহাম্মদ সাদ নিজেই।

একটি বেসরকারি মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক রেহানা মরিয়ম নূরকে কেন্দ্র করে এর গল্প। কর্মস্থলে ও পরিবারে তাল মেলাতে গিয়ে হিমশিম খেতে হয় তাকে। কারণ, শিক্ষক, চিকিৎসক, বোন, কন্যা ও মা হিসেবে জটিল জীবনযাপন করেন তিনি।

১ ঘণ্টা ৪৭ মিনিট ব্যাপ্তির ছবিটিতে নাম ভূমিকায় অভিনয় করেন আজমেরী হক বাঁধন। এছাড়া বিভিন্ন চরিত্রে আছেন সাবেরী আলম, আফিয়া জাহিন জায়মা, আফিয়া তাবাসসুম বর্ণ, কাজী সামি হাসান, ইয়াছির আল হক, জোপারি লুই, ফারজানা বীথি, জাহেদ চৌধুরী মিঠু, খুশিয়ারা খুশবু অনি, অভ্রদিত চৌধুরী।

আজসারাবেলা/সংবাদ/মাখ/বিনোদন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here