নবী করিম (সা.) যে সুগন্ধি ব্যবহার করে ঈদ জামাতে যেতেন

0
45

সারাবেলা ডেস্ক : সুগন্ধি ব্যবহার পছন্দ করতেন বিশ্ব নবী রাসুল (সা.)। তার দেহ মোবারক থেকে সব সময় সুবাস ছড়াতো। অনেক দূর থেকেই তার গায়ের সুরভি অনুভব করা যেত।

তিনি রাস্তা দিয়ে হেঁটে গেলে সুগন্ধির ঝরনা বয়ে যেত। মানুষ খুব সহজেই বুঝতে পারত, নবী করিম (সা.) রাস্তা দিয়ে হেঁটে গেছেন।

হজরত আবু আইয়ুব আনসারি (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘চারটি বস্তু সব নবীর সুন্নত- আতর, বিয়ে, মেসওয়াক ও লজ্জাস্থান ঢেকে রাখা। (মুসনাদে আহমাদ, হাদিস : ২২৪৭৮)।

হাদিসে আছে, মেশক আম্বরও ছিল রাসুলুল্লাহ (সা.) উত্তম সুগন্ধি। মহানবী (সা.) মেশক খুব পছন্দ করতেন। হরিণের নাভি থেকে এটা তৈরি করা হয়। হজরত আবু সাঈদ খুদরি (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘উত্তম সুগন্ধি হলো মেশক।’ (তিরমিজি, হাদিস : ৯১২)।

মেশক, চন্দন ও জাফরানের সুগন্ধি রাসুলুল্লাহ (সা.) ব্যবহার করেছেন। এর মাধ্যমে বোঝা যায়, মহানবী (সা.) বৈচিত্র্যময় সুগন্ধি ব্যবহার করতেন। আল্লামা ইবনে আবদুল বার (রহ.) ‘তামহিদ’ নামক কিতাবে হজরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা.)-এর একটি হাদিস বর্ণনা করেছেন। সেখানে বলা হয়েছে, ‘রাসুলুল্লাহ (সা.) জাফরানের সুগন্ধি ব্যবহার করেছেন।

রাসুলুল্লাহ (সা.) নিজে যেমন সুগন্ধি ব্যবহার করতেন তেমনি অন্যদেরও সাধ্যমতো সুগন্ধি ব্যবহারের আদেশ দিয়েছেন। বিশেষ করে লোকসমাগমে গেলে, জুমার দিন, ঈদের দিন সুগন্ধি ব্যবহারের বিশেষ তাগিদ দিয়েছেন। তিনি নিজেও ঈদের জামাতে যাবার আগে পছন্দের সুগন্ধি ব্যবহার করেছেন।

হজরত আবু সাঈদ খুদরি (রা.) থেকে বর্ণিত। রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘জুমার দিন ও ঈদের দিন যথাসম্ভব তোমরা সুগন্ধি ব্যবহার করো। ’ (নাসায়ি শরিফ, হাদিস : ১৩৫৮)। হজরত আয়েশা (রা.)-কে জিজ্ঞেস করা হয়েছিল, রাসুলুল্লাহ (সা.) কী ধরনের সুগন্ধি ব্যবহার করতেন, জবাবে তিনি বলেছেন, ‘মেশক ও আম্বরের সুগন্ধি রাসুলুল্লাহ (সা.) ব্যবহার করতেন। ’ (নাসায়ি শরিফ, হাদিস : ৫০২৭)।

আজ সারাবেলা/কেটি/ধর্ম

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here