স্বাধীনতা পদক পেয়ে রইজ উদ্দিন নিজেও বিস্মিত!

0
936

সারাবেলা ডেস্ক: সাহিত্যে রইজ উদ্দিনের স্বাধীনতা পদক পাওয়ায় অনেকেই বিস্মিত। এমনকি রইজ উদ্দিন নিজেও বিস্মিত হয়েছেন পদকপ্রাপ্তিতে।কে তিনি? কী তার পরিচয়? এমন আগ্রহ অনেকেরই। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাকে নিয়ে ব্যঙ্গবিদ্রুপের ছড়াছড়ি। বাংলা একাডেমীর সাবেক ডিজি, গবেষক শামসুজ্জামান খান নিজেও বিস্ময় প্রকাশ করেছেন ফেসবুক পোষ্ট দিয়ে। বিতর্কিত, আলোচিত চরিত্র রইজ উদ্দিনের একটি সাক্ষাৎকার প্রকাশ করেছে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম। তাদের সৌজন্যে আজ সারাবেলা পাঠকদের জন্য তার চৌম্বক কিছু অংশ তুলে ধরা হলো:

বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা রইজ উদ্দিন গত ১৫ জানুয়ারি অবসরে গেছেন খুলনা বিভাগীয় উপ-ভূমি সংস্কার কমিশনারের পদে থেকে। সরকারি ওয়েবসাইটে দেওয়া জীবন বৃত্তান্তের তথ্য অনুযায়ী, রইজ উদ্দিনের জন্ম ১৯৬০ সালের ১৫ জানুয়ারি, নড়াইলের লোহাগড়া থানার কুমড়ী গ্রামে। স্বাধীনতা পুরস্কারের ঘোষণা অনুযায়ী তিনি একজন মুক্তিযোদ্ধা।

স্বাধীনতা পদক পাওয়ার ঘটনাটি তিনি ব্যাখ্যা করেন এভাবে।বলেন, ‘বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের একজন অতিরিক্ত সচিব আমাকে ফোন করে জানালেন যে, আপনাকে স্বাধীনতা পুরস্কারের জন্য সরকার মনোনীত করেছে। আপনি পুরস্কারটি নেবেন কি না। প্রথমে আমি বুঝতেই পারিনি এত বড় পুরস্কারের জন্য আমাকে মনোনীত করা হয়েছে। পরে যখন বুঝতে পারলাম সত্যি সত্যি এটা করা হয়েছে, তখন আমি ভাষা হারিয়ে ফেলেছিলাম। আমি খুবই খুশি যে, গ্রাম-বাংলার শিল্প সাহিত্য সংস্কৃতি নিয়ে কাজ করলে স্বাধীনতা পদকের মতো এত বড় পুরস্কার পাওয়া যায়।’

কবিতা-উপন্যাসের পাশাপাশি নড়াইল, পিরোজপুর, পাবনাসহ বিভিন্ন অঞ্চলের ইতিহাস নিয়ে বই রয়েছে নড়াইলে জন্ম নেওয়া রইজ উদ্দিনের। তার কবিতার বইয়ের মধ্যে রয়েছে, কেমন করে স্বাধীন হলাম, হ-য-ব-র-ল, পাখি সব করে রব, বাংলার যত ফুল ও হারানো প্রিয়া (কাহিনী কাব্য)।‘পুষ্পিতারণ্যে বিথী’ নামে উপন্যাস এবং ‘পরলোকে মর্তের চিঠি’ নামে পত্রোপন্যাস রয়েছে তার। এর বাইরে রবীন্দ্রজীবনে ভবতারিনীর প্রভাব ও অন্যান্য প্রসঙ্গ (প্রবন্ধ), দেখে এলাম নেদারল্যান্ড: ভূমি প্রসঙ্গ (ভ্রমণ কাহিনী), বড়দের লেখাপড়া (বয়স্ক শিক্ষার বই), পাঁচমিশেলী (সংকরজাতীয় রচনা), কুমড়ী গ্রামের ইতিহাস ও ঐতিহ্য (ইতিহাস), লড়ে আল হতে নড়াইল (ইতিহাস), বৃহত্তর পাবনা জেলা ও সংশোধনী ভূমি জরিপ, খুলনা বিভাগের ইতিহাস প্রথম খণ্ড (ইতিহাস), আগস্ট ট্রাজেডি ও তারপর! (ইতিহাস), পিরোজপুর জেলার ইতিহাস, বরিশাল বিভাগের কিছু কথা নামে ইতিহাসের বই রয়েছে তার।‘গাড়ি সমাচার’ নামে রম্য রচনা এবং ‘আজব দেশের ছড়া’ নামে ছড়ার বই রয়েছে রইজ উদ্দিনের।
নিজের লেখালেখি নিয়ে তিনি বলেন, ‘আমি ছোটবেলা থেকেই পল্লী কবি জসিম উদদীনের লেখার ভক্ত। উনি আমার ওপর ভর করেছিলেন। তার লেখা আমাকে সব সময় প্রভাবিত করেছে। আমার কবিতা, সব লেখাতেই তার প্রভাব পড়েছে।’

১৯৬০ জন্ম হলে ১১ বছর বয়সে কোথায় কীভাবে মুক্তিযুদ্ধ করলেন- সে প্রশ্নের জবাবে রইজ উদ্দিন বলেন, ‘ভাই, আমরা গ্রামের ছেলে- সার্টিফিকেটের বয়সের চেয়ে প্রকৃত বয়স একটু বেশিই থাকে। একাত্তরে যখন মুক্তিযুদ্ধ হয় তখন আমার বয়স আসলে ১৪-১৫ বছর ছিল। ৮ নম্বর সেক্টরের অধীনে আমি যুদ্ধ করেছি।’

জীবন বৃত্তান্তে বাংলাদেশ ইতিহাস সমিতির আজীবন সদস্য এবং বাংলা একাডেমির সদস্য উল্লেখ করেছেন রইজ উদ্দিন। এ বছর ভারতেশ্বরী হোমস ও অপর আট ব্যক্তির সঙ্গে এই পদক পাচ্ছেন তিনি। তারা সবাই পুরস্কার হিসেবে ১৮ ক্যারেট মানের পঞ্চাশ গ্রাম ওজনের একটি স্বর্ণপদক, পাঁচ লাখ টাকার চেক ও একটি সম্মাননাপত্র পাবেন।

আগামী ২৫ মার্চ ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদক বিতরণ করবেন।

কৃতজ্ঞতা: বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

আজসারাবেলা/সংবাদ/সাআ/সাক্ষাৎকার/জাতীয়

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here