বলিউড সুন্দরীদের রূপের রহস্য

বিনোদন ডেস্কঃ টিভি পর্দায় তাদের উপস্থিতি মানেই বাড়তি মনযোগ, বাড়তি আকর্ষণ। তাদের রূপের দিকে তাকিয়ে চোখের পলক পড়ে না কারও কারও। শত ব্যস্ততা আর কাজের পরেও তাদের রূপ যেন ঝলমল করতে থাকে। তাদের ত্বক, ফিটনেস সবই চোখে পড়ার মতো। আর একইভাবে তা ধরে রাখেন বরাবর। এজন্যই যেন সবার আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে বলিউড সুন্দরীদের রূপের রহস্য। জেনে নিন আপনিও-

সোনম কাপুর: বাবার পরিচয় ছাপিয়ে পরিচিত হয়ে উঠেছেন নিজের নামেই। তার রূপের জাদুতে মাতোয়ারা সারা বিশ্ব। নিখুঁত ব্যক্তিত্বর আর ঝলমলে হাসি সব সময়ই যেন প্রাণবন্ত করে রাখে তাকে। তিনি সোনম কাপুর। ত্বকের চেয়েও বেশি যত্নশীল ফিটনেসে। পরিশ্রম না করলে যে নিখুঁত ত্বক পাওয়া যায় না, তা পুরোপুরি বিশ্বাস করেন এই নায়িকা। তবে কোনো ঘরোয়া টোটকার চেয়েও তিনি নির্ভর করেন ভালো ডায়েটের উপর। সকালের ঘুম থেকে উঠে সোনম প্রথমেই গরম পানিতে লেবুর রস এবং মধু মিশিয়ে খান। এতে শরীরের অনেক টক্সিন বেরিয়ে যায়। ত্বকের উজ্জ্বলতাও বাড়ে। তাছাড়া ক্লিনজিং, টোনিং এবং ময়েশ্চারাইজিংয়ের রুটিন মেনে চলেন এই বলিউড নায়িকা।

দীপিকা পাড়ুকোন: এই মুহূর্তে বলিউডের দামী নায়িকাদের একজন দীপিকা পাড়ুকোন। শত ব্যস্ততার পরেও নিজের ত্বকের যত্ন নিতে একদমই ভুল করেন না তিনি। এই কারণে তার গমরঙা গায়ের রং অনেকের কাছেই ঈর্ষণীয়। তবে ত্বক পরিষ্কার রাখার জন্য যথেষ্ট পরিশ্রম করেন তিনি। নিয়মিত দশ থেকে ১২ গ্লাস পানি খান এই নায়িকা, যাতে শরীর থেকে সব টক্সিন ধুয়ে যায়। এছাড়া পুষ্টিকর খাবার খান, যাতে পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন শরীরে যায়। ত্বক যাতে শুষ্ক না হয়ে যায়, সে জন্য সব সময় ফেশিয়াল মিস্ট ক্যারি করেন দীপিকা।

ঐশ্বরিয়া রাই: তার রূপের স্বীকৃতি মিলেছিল আরও অনেক আগে, সেই ১৯৯৪ সালে। জিতেছিলেন বিশ্বসুন্দরীর খেতাব। তার সৌন্দর্যের রহস্য জানতে উন্মুখ অনেকেই। নিয়মিত ডায়েট এবং এক্সারসাইজের মধ্যে থাকেন জনপ্রিয় এই বলিউড অভিনেত্রী। মুখের পোড়াভাব কিংবা কোনো রকম দাগছোপ দূর করার জন্য তিনি ভরসা করেন ঘরোয়া টোটকার উপর। বেসন, হলুদ এবং দুধ মিশিয়ে একটা প্যাক বানিয়ে সপ্তাহে তিনদিন লাগান তিনি। ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখতে শসার নির্যাস দিয়ে তৈরি ফেসপ্যাক ব্যবহার করেন।

আলিয়া ভাট: বলিউডের সবচেয়ে আদুরে চেহারার নায়িকা তিনি। বয়স খুব বেশি না হলেও অভিনেত্রী হিসেবে এর মধ্যেই জায়গা করে নিয়েছেন দর্শকের হৃদয়ে। যেমন সুন্দরী তেমনই ফিটনেস সচেতন। তবে আলিয়া তেমন একটা রূপচর্চা করতে পছন্দ করেন না। সুন্দর ত্বক পাওয়ার জন্য ডায়েট, এক্সারসাইজ এবং যোগ ব্যায়ামের উপরেই ভরসা রাখেন তিনি। তবে প্রতিদিন নিয়ম করে তুলসীপাতা বাটা এবং নিমপাতা বাটা কোনো ফেসপ্যাকের সঙ্গে মিশিয়ে মুখে লাগান। এতে তার ত্বক সহজেই ডিটক্সিফাই হয়ে যায়। শুকিয়ে গেলে গোলাপজল দিয়ে ধুয়ে নেন তিনি। ব্যস, আলিয়ার রূপের রহস্য এটুকুনই।

কৃতি শ্যানন: কদিনেই যেন বলিউড মাত করে ফেলেছেন মিষ্টি হাসির এই নায়িকা। রূপে গুণে যার দারুণ সুনাম রয়েছে। নিজের সৌন্দর্য ধরে রাখতে একদম অবহেলা করেন না কৃতী। বাড়ির হালকা খাবার খেতে ভালোবাসেন তিনি। নিয়মিত এক্সারসাইজ করেন। ক্লিনজিং, টোনিং এবং ময়েশ্চারাইজিংয়ের রুটিন মেনে চলেন। বাড়ি ফিরতে যতই দেরি হোক না কেন, শোয়ার আগে মুখ ঠান্ডা পানি দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নেন। আর তাইতো এমন ঝলমলে রূপ তার।

আজ সারাবেলা/সংবাদ/সাআ/বিনোদন

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.